জীবনচর্যা

নারীবাদ

নারীবাদ

জীবনচর্যা
১৮৮০ সালে বৈশ্বিক আন্দোলন হিসেবে ফ্রান্সে, ১৮৯০ সালে যুক্তরাজ্যে এবং ১৯১০ সালে যুক্তরাষ্টে নারীবাদ শব্দটির প্রচলন হয়। নারীবাদ হলো নারী ও পুরুষের মধ্যকার সমতার একটি মতবাদ, যাতে নারীর ওপর পুরুষের আধিপত্য বিস্তার রোধে নারীদের সংগঠিত হওয়ার উপর এবং সামাজিক জীব হিসেবে সমঅধিকার ও দায়িত্বের ভিত্তিতে নারী-পুরুষের জন্য সমাজকে নিরাপদ আবাসস্থলে রূপান্তরিত করার উপর গুরুত্ব দেয়। নারীবাদ নারীবাদ মতাদর্শ হলো নারীরা রাজনৈতিক, সামাজিক, লৈঙ্গিক, বৌদ্ধিক ও অর্থনৈতিক দিক থেকে পুরুষের সমান অধিকার লাভ করবে। নারীবাদের কর্মকান্ড বৃহৎ পরিসরে নারীদের অবস্থার পরিবর্তনের লক্ষ্যে পরিচালিত। নারী যেখানে বৈষম্যের শিকার, পুরুষের অধস্তন, সেখানে নারীবাদ এ অবস্থার পরিবর্তন সাধনে পরিচালিত। নারী আন্দোলনকারীরা নারীর আইনগত অধিকার (চুক্তির অধিকার, সম্পত্তির অধিকার, বৈবাহিক অধিকার, ভোটাধিকার), দৈহিক স্বাধীনতা ও অখন্ডতা ...
লোকাচার

লোকাচার

জীবনচর্যা
বাংলাদেশে হিন্দু, মুসলমান, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান সকল সম্প্রদায়ের মধ্যে শাস্ত্রানুমোদিত ধর্মীয় ও সামাজিক আচার-অনুষ্ঠানের পাশাপাশি লোকাচার বা লৌকিক আচার-অনুষ্ঠানেরও প্রচলন আছে লোকাচার বিশেষত লোকসমাজে আচার-অনুষ্ঠানাদির অন্ত নেই। ‘বার মাসে তের পার্বণ’ কথার কথা মাত্র, প্রকৃতপক্ষে এরূপ আচার-পার্বণের সংখ্যা অজস্র। আচারগুলো প্রধানত তিথি, মাস ও ঋতু ভিত্তিক। আচারের মূলে আছে প্রধানত অন্ধ ও অলৌকিক বিশ্বাস ও নানা সংস্কার; এরূপ বিশ্বাস-সংস্কারের অনুকূলে কতক কৃত্যানুষ্ঠান সংযুক্ত করে ধর্মীয় আচারে পরিণত করা হয়। এ ভূখন্ডের প্রাগৈতিহাসিক ও ঐতিহাসিক যুগের জাতিগোষ্ঠীর লৌকিক ও অলৌকিক বিশ্বাস-সংস্কার, ধ্যান-ধারণাকে আশ্রয় করে নানা প্রথা-পার্বণ, আচার-উৎসব গড়ে উঠেছে। আচারগুলোর উপলক্ষ, আয়োজন, উপাদান, কৃত্যানুষ্ঠান বিশে­ষণ করলে আদিবাসীর সংস্কার-বিশ্বাসের সঙ্গে বেশ মিল পরিলক্ষিত হয়। মানবজীবন নানা আশঙ্কা ও ভী...
বিবাহ

বিবাহ

জীবনচর্যা
মানব সমাজের প্রাচীনতম প্রতিষ্ঠান বিবাহ যুগে যুগে প্রতিষ্ঠানটি এর আদি রূপ থেকে বর্তমান কাঠামোয় উপনীত হয়েছে। বিবাহপ্রথাকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিয়েছে প্রধানত ধর্ম। বিয়েসংক্রান্ত সকল নিয়মকানুন বিধিবদ্ধ হয়েছে ধর্মীয় অনুশাসনে। প্রাচীনকাল থেকে বাংলায় ধর্মীয় শাস্ত্রের বিধানই ছিল সামাজিক আইন, ধর্মীয় আইনের দ্বারাই শাসিত হতো সমাজ-সংসার। ধর্মীয় এবং রাষ্ট্রীয় আইনের পাশাপাশি লোকজ সংস্কৃতিও বৈবাহিক জীবনকে প্রভাবিত করেছে নানাভাবে। নারী-পুরুষ উভয়ের ক্ষেত্রেই বিয়ের প্রয়োজনীয়তা স্বীকৃত হলেও শাস্ত্রীয় বিধানে বৈদিক যুগ থেকেই বিবাহ নারী-জীবনের প্রধান প্রাপ্তি ও পরম সার্থকতা বলে বিবেচিত, নারীর জন্য বিবাহ অপরিহার্য, পুরুষের জন্য নয়। ঋগ্বেদে বিয়ের সামাজিক ও ধর্মীয় দায়িত্ব ও কর্তব্য প্রয়োজনীয়তার উল্লেখ আছে। মনুস্মৃতি এবং অর্থশাস্ত্রে আট প্রকারের হিন্দু-বিবাহ পদ্ধতির উল্লেখ আছে। ‘ব্রাহ্ম’,...
গায়ে হলুদ

গায়ে হলুদ

জীবনচর্যা
বিবাহ অনুষ্ঠানের একটি গুরুত্বপূর্ণ পর্ব গায়ে হলুদ বিবাহের মূল অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে আনুষঙ্গিক নানা ধরনের আচার-অনুষ্ঠান সম্পাদিত হয়, যাকে ফোকলোরের ভাষায় বলে: Many rites within one ritual। বর-কনের দাম্পত্য জীবনকে যেকোনো ধরনের অকল্যাণ বা অপশক্তির অনিষ্ট থেকে মুক্ত রাখার কামনা থেকেই এসব লোকাচার পালন করা হয়। গায়ে হলুদ এ সবেরই একটি এবং এটি মূলত একটি মাঙ্গলিক অনুষ্ঠান, যা প্রাচীনকাল থেকে প্রচলিত। হিন্দুসমাজে এ লোকাচার গাত্রহরিদ্রা বা অধিবাস নামে অভিহিত। অন্যদিকে বিভিন্ন স্থানের মুসলমানেরা অনুষ্ঠানটি বিভিন্ন নামে পালন করে থাকে, যেমন: গায়ে হলুদ, হলদি কোটা, তেলই, কুড় দেওয়া প্রভৃতি। বৈদিক যুগ থেকে ভারতীয় হিন্দুসমাজে গাত্রহরিদ্রা বা অধিবাস বিয়ের অনুষ্ঠানের অবশ্য পালনীয় শাস্ত্রাচার ও লোকাচার হিসেবে পালিত হয়ে এসেছে। ভারতবর্ষে মুসলমানদের আগমনের পর তারাও আচার-অনুষ্ঠানে দেশিয় রীতিপদ্ধতি...
সমাজ কাঠামো

সমাজ কাঠামো

জীবনচর্যা
সাধারণভাবে পুনরাবৃত্ত যেকোন সামাজিক আচরণ, অথবা আরও সুনির্দিষ্টভাবে বলতে গেলে, সমাজের বিভিন্ন অংশের মধ্যে সুশৃঙ্খল আন্তঃসম্পর্ক সমাজ কাঠামো বিভিন্ন ধরনের ধর্মীয়, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠান এবং একটি সমাজের সদস্যদের মূল্যবোধ, নৈতিকতা ও সামাজিক ভূমিকার সমন্বয়ে একটি সমাজ কাঠামো সংগঠিত। যেকোন সমাজে সমাজ কাঠামোর বিশ্লেষণ ঐতিহাসিকভাবে নানাবিধ শর্তযুক্ত এবং অনুরূপভাবে বিন্যস্ত বাংলাদেশের সমাজ কাঠামোও সেই আঙ্গিকে বিশ্লেষণের দাবি রাখে। বিপুল সংখ্যক ছোট ও বড় নদীর সমন্বয়ে বাংলা মূলত একটি পাললিক ভূখন্ড। আদিপর্বে প্রতিষ্ঠিত একটি সুস্থির কৃষিভিত্তিক অর্থনীতি বাংলার অধিবাসীদেরকে নিজের জীবনধারা সংগঠনে ও বিকাশে সহায়তা করে। অষ্টম শতকের শেষ পর্যায়ে বাংলার জনগণ একটি সমস্বত্ববান জাতিসত্তা গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছিল, যাদের ছিল একটি স্বতন্ত্র ভাষা, সংস্কৃতি ও চরিত্র। অবশ্য জাতিতাত্ত্বিকভা...